ভবিষ্যতে রাজাকারের সন্তানরা সরকারি চাকরি পাবে না: মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী

0
166
ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

ভবিষ্যতে রাজাকারের সন্তানরা গভার্মেন্ট চাকরি পাবে না বলে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী “আ ক ম মোজাম্মেল হক”। জুম্মাবার (4 মার্চ) দুপুরে গাজীপুর মহান গরের সাহা-পাড়া এলাকায় মার্কাস রোড পঞ্চাশ শয্যাবিশিষ্ট ডায়াবেটিস হসপিটালের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে এসে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘রাজাকারের লিস্ট তৈরির আইন পার্লামেন্টে জমা দেওয়া আছে। পরবর্তী অধিবেশনে পাস হলেই রাজাকারের লিস্ট তৈরির কাজ শুরু হবে।’ গাজীপুর ডায়াবেটিক সমিতির সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা “কাজী আলিমউদ্দিন বুদ্দিনের” সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল।

বক্তব্য রাখেন সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি সামসুন্নাহার ভূঁইয়া, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভার-প্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমান কিরণ, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমান, সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এস এম আনোয়ারুল করিম, সমিতির সাবেক সভাপতি ডা. ইউনুস আলী প্রমুখ। ‘দেশ স্বাধীন করা যেমন কঠিন কাজ, তেমনি দেশের সার্ব-ভৌমত্ব রক্ষা করাও কঠিন’ উল্লেখ করে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আরো বলেন, ‘আমরা 1971 সালে সংগ্রাম করে দানবীয় শক্তিকে পরাজিত করার মাধ্যমে দেশকে স্বাধীন করেছি। কিন্তু পরাজিত শত্রু ও তাদের দোসররা বসে নেই। তারা দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছেন। তারা দেশকে অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করতে চান। দেশকে পেছনের দিকে ঠেলে দিতে চান। এ পরাজিত শত্রুদের দমন করতে হবে।’

গাজীপুর মহানগরীর 28 নম্বর ওয়ার্ডের সাহাপাড়া এলাকায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা 101 টাকা প্রতীকী মূল্যে ডায়াবেটিক হসপিটালের জন্য 55 শতাংশ জমি বরাদ্দ দেন। ওই জমিতে হসপিটাল নির্মাণে সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে 22 কোটি 5 লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। এর মধ্যে মন্ত্রণালয় থেকে 17 কোটি 68 লাখ টাকা এবং সমিতির পক্ষ থেকে 4 কোটি 41 লাখ টাকা দিয়ে ছয় তলা বিশিষ্ট হসপিটালটির নির্মাণ করা হবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে স্থানীয় গণপূর্ত বিভাগ এবং প্রকল্প পরিচালকের দায়িত্ব পালন করবেন সমাজসেবা বিভাগের উপ পরিচালক। 2023 সালের জুন মাসের মধ্যে প্রকল্পটির নির্মাণ কাজ শেষ হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here